কালনা সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালে অব্যবস্থা, দীর্ঘক্ষণ ওয়ার্ডে পড়ে কোভিডে মৃতের দেহ


নিজস্ব প্রতিবেদন: এ যেন প্রদীপের নিচের অন্ধকার! কালনায় ঝাঁ চকচকে সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালে মৃত্যুর পর  ১০ ঘণ্টা বেডেই পড়ে রইল করোনায় মৃতের দেহ! চরম সমস্যায় ওই হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অন্য করোনা রোগীরা। কর্তৃপক্ষের কোনও হেলদোল নেই।

কালনা সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালে করোনা ওয়ার্ডটি তিনতলায়। ওয়ার্ডে রোগীর সংখ্যাও প্রচুর। হাসপাতাল সূত্রে খবর, শুক্রবার গভীর রাতে ভর্তি হন এক বৃদ্ধ। তাঁর শারীরিক অবস্থা রীতিমতো আশঙ্কাজনকই ছিল। মারা যান এদিন ভোরে।  তারপর? করোনা ওয়ার্ডের অন্য রোগীর অভিযোগ, দীর্ঘক্ষণ ধরেই বেডেই পড়েছিল ওই বৃদ্ধের দেহ। বারবার জানানো সত্ত্বেও নার্স ও চিকিৎসকরা দেহ সরানোর ব্যবস্থা করেননি। এমনকী দেখে মেলেনি স্বাস্থ্যকর্মীদেরও। দেখতে দেখতে পেরিয়ে যায় ১০ ঘণ্টা।

আরও পড়ুন: চুঁচুড়ার মর্গে আর জায়গা নেই, খোলা আকাশের নিচে পড়ে দেহ

এদিকে আবার কালনা সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালের করোনা ওয়ার্ডে যাঁরা ভর্তি রয়েছেন, তাঁদের অনেকেই সুস্থ হয়ে উঠেছিলেন। কিন্তু এভাবে যদি কোভিডে মৃতে দেহ পড়ে থাকে, তাহলে সংক্রমণ ছড়ানোর আশঙ্কা যথেষ্টই। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের উদাসীনতায় ক্ষুদ্ধ সকলেই। যদিও এই ঘটনার কথা স্বীকার করতে চায়নি কালনা সুপার স্পেশালিটি হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। বরং তাদের দাবি,  ওই বৃদ্ধের মৃত্যুর নিয়ম মেনে ৪ ঘণ্টার পরিবারকে খবর দেওয়া হয়। বাড়ির লোকের অনুরোধে কোভিড বিধি মেনে শেষকৃত্যের ব্যবস্থাও করা হয় হাসপাতালে তরফে।



Supply hyperlink

Leave a Reply