সেফ হোমের খাবার খারাপ; জলে শেওলা, জাতীয় সড়কে যান চলাচল রুখে দিলেন করোনা রোগীরা


নিজস্ব প্রতিবেদন: সরকারি কোভিড সেফ হোমে অব্যবস্থার প্রতিবাদে ৩৪ নম্বর জাতীয় সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ দেখালেন করোনা আক্রান্ত রোগীরা। থমকে গেল ব্যাস্ত জাতীয় সড়ক।

ইটাহারের(Itahar) গটলু এলাকার এই ঘটনায় চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পরে। বেশ কিছুক্ষণ অবরোধ চলার পরে ইটাহার থানার পুলিস এসে রোগীদের বুঝিয়ে, সেফ হোমের(Protected Residence) ভেতরে পাঠায়।

আরও পড়ুন-ভ্যাকসিন-অক্সিজেন সঙ্কট মোচনে কী পদক্ষেপ, কেন্দ্রকে হলফনামা দিতে নির্দেশ সুপ্রিম কোর্টের 

ইটাহারের গটলু এলাকার হোমগার্ড ট্রেনিং সেন্টারে করোনা আক্রান্ত রোগীদের(Covid Affected person) রাখার জন্য সরকারি সেফ হোম করা হয়েছে।  বর্তমানে ৪০ জনের বেশী করোনা আক্রান্ত রোগী ওই হোমে রয়েছেন। এদিকে, প্রতিনিয়ত সেফ হোমে রোগীর সংখ্যা বাড়ছে।

ওই সেফ হোমে থাকা রোগীদের অভিযোগ তাদের নিম্নমানের খাবার দেওয়া হচ্ছে। এমনকি পানীয় জলের জারে দেখা যাচ্ছে শেওলা। স্বাস্থ্য দপ্তরের আধিকারিকদের এই অব্যবস্থার কথা জানালেও কোনও সুরাহা হয়নি। ওই সব অব্যবস্থার বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানাতে ওই সেফ হোমের সামনের ৩৪ নম্বর জাতীয় সড়ক অবরোধ করে দাঁড়িয়ে পড়েন করোনা রোগীরা।  অবরুদ্ধ হয়ে পড়ে জাতীয় সড়ক।

এক করোনা পজিটিভ রোগী সংবাদমাধ্যমে জানালেন, এখানে খাবারের মান একেবারে খারাপ। সরকার যে খাবাবের মান বেঁধে দিয়েছে তা মানা হচ্ছে না। জল থেকে শুরু করে অন্যান্য সুবিধা যতক্ষণ পর্যন্ত না দেওয়া হয় ততক্ষণ এই অবরোধ তুলব না।  অন্য এক রোগী জানালেন, জলে শেওলা দেখা যাচ্ছে। অভিযোগ করার পরও কোনও কাজ হচ্ছে না।  

আরও পড়ুন-শেষ দফার ভোটে মোতায়েন ৭৫৩ কোম্পানি Central Drive, সবচেয়ে বেশি বীরভূমে  

খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে ছুটে আসে ইটাহার থানার পুলিস। তাঁরা ওইসব করোনা রোগীদের আশ্বাস দেন পরিস্থিতি ঠিক করতে প্রশাসনিক পদক্ষেপ নেওয়া হবে। এর পরেই বিক্ষোভকারী রোগীরা সেফ হোমে ফিরে যান। এই বিষয় নিয়ে স্বাস্থ্য দপ্তরের কোনও আধিকারিক এখনও মুখ খুলতে রাজী হয়নি। 



Supply hyperlink

Leave a Reply